Header Ads

  • পোস্ট

    ম্যানুয়াল জুতা তৈরি করার মেশিন । Manual Sandle making machine

     

    আসসালামু আলাইকুম
    জুতা আমাদের দৈনন্দিন জীবনের অংশ। অল্প টাকায় যদি লাভজনক ব্যবসা করতে চান তাহলে জুতা তৈরি করার ব্যবসা সবচাইতে প্রথমে থাকবে। 
    আমাদের এই মেশিন দিয়ে আপনি যেকোনো সাইজের জুতা তৈরি করতে পারবেন।
    আমাদের এই মেশিন দিয়ে আপনি ডালাই ছাড়া প্রায় সকল প্রকার জুতা তৈরি করতে পারবেন।


    যা যা পাবেনঃ

    1. 3in 1 মেশিন । এই মেশিনে কাটিং, গ্রাইন্ডিং ও ড্রিল করতে পারবেন
    2. ফিতা লাগানোর হুক
    3. একটি পন্সের ডাইস
    4. একটি কাটিং বোর্ড
    5. একটি ডান্ডা/স্টিক যা দিয়ে চাপ দিবেন।

    মুল্য .৩৫,০০০টাকা

    এই সেটাপ কিনার পর আপনাকে সুধুমাত্র ডাইস ও কাঁচামাল কিনতে হবে। আপনি হয়তো ভাবতিছেন মাত্র ১ টি ডাইস কেনো দিবো?

    আসলে এক এক এলাকার  কাস্টমার  এক এক ডিজাইনের জুতা চায়। আমরা যদি আপনাকে ডাইস দেই তাহলে দেখাযাবে যেই ডিজাইন এর ডাইস দিয়েছি সেটা আপনার এলাকায় চলে না। তাই আপনি আমাদের কে যেমন ইচ্ছা ডিজাইন দিলে আমরা আপনাকে সেই ডিজাইনের ডাইস দিতে পারব সমস্যা নেই। 

    আমাদের কাছে বাংলাদেশি ও ইন্ডিয়ান ২ প্রকার ডাইস পাওয়া যায়। প্রতি পিছ ডাইসের মূল্য মাত্র ৯৫০ টাকা থেকে সর্বোচ্য ১৫০০ টাকা। 
    আমাদের কাছেই মেশিন কাঁচামাল ও ডাইস পাবেন 

    লাভ কেমন?
    লাভ আসলে প্রডাক্ট এর উপর নির্ভর করে। যেমনঃ

    এইটা হচ্ছে পন্সের সেন্ডেল। অনেকে চপ্পল বলেন। এই টাইপের একজোড়া জুতা তৈরি করতে ১৮ থেকে ২৮ টাকা পর্যন্ত খরচা হয় কোয়ালিটি অনুযায়ী। প্রতি জুড়া জুতা আপনি  ৫/১০ টাকা লাভে পাইকারি বিক্রি করতে পারবেন । আমাদের এই মেশিনে প্রতিদিন এই প্রকার জুতা ১৫০ পিছের বেশি তৈরি করতে পারবেন। ৫ টাকা করে লাভ করলেও (২৫০ x ৫ = ১২৫০) দিনে । আপনি যদি আলাদা লোক নিয়ে কাজ করেন তাহলে আরো বেশি প্রডাক্সন হবে।


    এইটা হচ্ছে ভার্মিজ সেন্ডেল। অনেকে এইটাকে কেঙ্গারু বা হাওয়াই চপ্পল নামে চিনেন। এই জুতা মার্কেটে সর্বনিম্ন ১৫০ থেকে ২৫০ টাকাও বিক্রি হয়। কিনতু এই জুতা আপনি আমাদের এই মেশিনে মাত্র ৭৫ টাকার ভিতর সবচাইতে ভালো কোয়ালিটির জুতা তৈরি করতে পারবেন। এই জুতা মার্কেটে পাইকারি ১০০ থেকে ১০৫ টাকা পাইকারি বিক্রি হয়। প্রতি জোড়া জুতায় ২৫ থেকে ৩০ টাকা লাভ হয়। আমাদের এই মেশিনে এই জুতা ১৫০ থেকে ২০০ জোড়া তৈরি করতে পারবেন। ২০ টাকা করে লাভ করলেও প্রতিদিন ( ২০০ x ২৫ = ৫,০০০) টাকা দিনে ইনকাম করতে পারবেন। আলাদা লোক রাখলে আরো বেশি ইনকাম হবে।স

    এখন প্রশ্ন হচ্ছে, এতো জুতা বিক্রি করবেন কোথায়?
    1. আপনি চাইলে ঢাকা সিদ্দিক বাজারে এই জুতা সাপ্লাই দিতে পারেন। সেইখানে অনেক জুতার আরদ আছে
    2. আপনার এলাকায় যেই জুতার দোকান আছে তাদের সাপ্লাই দিন। উনারা ঢাকা থেকে যেই রেটে কিনে আপনি সেই রেটেই দিন। এতে আপনার প্রচুর লাভ হবে। 
    3. অনলাইনে মার্কেটিং করে বিক্রি করতে পারবেন।
    প্রতিদিন কি পরিমানে জুতা বিক্রি করতে পারবেন?
    আপনি যদি ঠিক মত মার্কেটিং করতে পারেন তাহলে আপনি অনেক পরিমানেই জুতা বিক্রি করতে পারবেন। কারন আপনি যেহেতু পাইকারি জুতা বিক্রি করবেন সেহেতু কেও ত ১২ পিছের নিচে কিনবে না। আমাদের মেশিন নিলে আমাদের কাছেই কাঁচামাল পাবেন প্রায় ১৫০ প্রকার। আপনি যদি ১৫০ ডিজাইন জুতা দেখান সেইখান থেকে আপনার কাস্টমার মিনিমাম ৫ থেকে ১০ টা এমনিতেই কিনার কথা। তার মানে আপনি এক দোকানেই (১০ x ১২ = ১২০) জোড়া জুতা বিক্রি করতে পারবেন। আপনার এলাকায় যদি এমন ২০/৩০ টা দোকানে সাপ্লাই দিতে পারেন তাহলে কি পরিমানে জুতা হিসেব করে দেখেন। আপনি চাইলে এলাকার বাহিরেও এই জুতা বিক্রি করতে পারবেন। 

    যোগাযোগঃ

    এম এস মেশিনারি, রাজেন্দ্রপুর রেলগেইট, গাজীপুর (ঢাকা)

    ফোনঃ 01797498160, 01797498160 ( সকাল ৮টা থেকে রাত ৮ টা)


    কোন মন্তব্য নেই

    কিছু বুজতে সমস্যা হইলে কমেন্ট করুন

    Post Top Ad

    Post Bottom Ad