অল্প টাকায় জালি ব্যাগ উৎপাদন ব্যবসা ৩০ হাজার টাকায় - MS Machinery

ফোন দিয়ে না পাইলে ০১৯৩৩৪৫৭৭১০ এই নাম্বারে ইমু ও WhatsApp আছে। আপনার কি কি লাগবে মেসেজ দিবেন।

Product

অল্প টাকায় জালি ব্যাগ উৎপাদন ব্যবসা ৩০ হাজার টাকায়


আমাদের দৈনিন্দন চাহিদা মেটাতে বাজারে যেতে হয়। বাজারে গিয়ে যা কিছুই কিনি না কেন সব ব্যাগের ভিতর রাখতে হয়। সব ধরনের কেনাকাটায় ব্যাগের প্রয়োজন হয়। কিন্তু আমরা এতই অলস যে প্রায়ই বাজারে যাওয়ার সময় ব্যাগ নিতে ভুলে যাই। আবার অনেকের বাসায় বাজারে নেওয়ার মত ব্যাগই থাকে না। তখন অনেকেই বাজারেই গিয়ে জালি ব্যাগ কিনে নেন। জালি ব্যাগের অনেক চাহিদা রয়েছে। এই ব্যবসা অনেক কম পুঁজি নিয়েই শুরু করা যায়। এ ছাড়া এই ব্যবসাতে তেমন লোকবলের প্রয়োজন হয় না। নিজের বাসা বাড়ি অথবা ছোট্ট স্পেস ভাড়া নিয়েই শুরু করা যায়। জালি ব্যাগ উৎপাদনের ব্যবসা কম ঝুকিপূর্ণ। যারা স্বল্প পুঁজিতে ব্যবসা করতে চান তাদের জন্য জালি ব্যাগ উৎপাদনের ব্যবসা হতে পারে ভাল আয়ের ক্ষেত্র। দেখে নিন কিভাবে জালি ব্যাগ উৎপাদন করবেন।

প্রয়োজনীয় উপকরণঃ
ব্যাগ সেলাই করার জন্য সেলাই মেশিন, জালি ব্যাগ তৈরির জন্য নেট কাপড়, সুতা, কাটিং ও সেলাই করার জন্য দুজন শ্রমিক লাগবে। ব্যাগ উৎপাদন করার প্রধান উপকরণ নেট কাপড় পাইকারী দরে পাবেন গুলিস্তান, ফুলবাড়িয়া, মিরপুর ১ ও ২, নারায়ণগঞ্জ, গাউছিয়া (নরসিংদী)।সেলাই মেশিন পাবেন নিউ মার্কেট, সদরঘাট, নবাবপুর। সুতা দেশের সব জায়গাতেই পাবেন। কাটিং ও সেলাই কাজে দক্ষ দেখে দুইজন শ্রমিক নিতে হবে।

পুঁজি কত লাগবেঃ
ব্যাগ উৎপাদন করতে বেশি পুঁজির প্রয়োজন নেই। পায়ে চালানো সেলাই মেশিন ৭০০০-৮০০০ টাকা, ইলেকট্রিক সেলাই মেশিন ১৮০০০-২০০০০ টাকা, প্রতি ১০০ গজ নেট কাপড় ৫০০ টাকা, প্রতি কেজি সুতা ১৩০ টাকা পরবে। তাই একটি মেশিন ও দুজন শ্রমিক নিয়ে মাত্র ৩০ হাজার টাকা মূলধন নিয়ে এই ব্যবসা শুরু করা যাবে।

শ্রমিকঃ
প্রাথমিকভাবে কাটিং, সেলাই ও ভাজ করার জন্য দুজন শ্রমিকের প্রয়োজন হবে। ১০০০ ব্যাগ সেলাই করার জন্য সেলাইকারীকে দেওয়া হয় ৫০ টাকা, কাটিং মাস্টারকে দেওয়া হয় ১০০ টাকা। আপনার চাহিদা যদি বেড়ে যায় তাহলে মেশিন ও শ্রমিক সংখ্যা বাড়াতে হবে।

ঝুকি কতটুকুঃ
জালি ব্যাগ উৎপাদনে ঝুকি নেই। এখানে মালামাল নষ্ট হওয়ার ভয় নেই। বাজারে যেহেতু এইসব ব্যাগের অনেক চাহিদা রয়েছে তাই সহজেই বাজারজাত করা যায়। এ ছাড়া সেলাই মেশিন অন্য কাজেও ব্যবহার করা
যায়।

বাজারজাতঃ
উৎপাদিত ব্যাগ মুদি দোকান, ফলের দোকান, শপিং মল, শাক-সবজীর দোকান ও মাছের দোকানে গিয়ে বিক্রি করতে হবে। প্রথম কয়েকদিন বিক্রি কম হলেও ব্যবসা গড়ানোর সাথে সাথে মার্কেটে শক্ত অবস্থান তৈরি করে নেওয়া যায়।
আয়ঃ
১০০ গজ নেট ও টিস্যু কাপড় থেকে ১২ বাই ১৩ ইঞ্চি আয়তনের ব্যাগ হয় সাধারণত ৬৫০টি, ১৫ বাই ১৬ ইঞ্চির ৪৫০টি, ১৫ বাই ১৮ ইঞ্চির ৪০০টি, ১৫ বাই ২০ ইঞ্চির ৩৫০টি এবং ২০ বাই ২০ ইঞ্চির ২৫০টি। একটি ইলেকট্রিক সেলাই মেশিন দিয়ে প্রতিদিন প্রায় ৫০০০ ব্যাগ তৈরি করা সম্ভব। সব ধরনের খরচ বাদ দিয়ে একটি জালি ব্যাগ থেকে ৫০-৬০ পয়সা মুনাফা থাকেব। আপনি যদি প্রতিমাসে ১৫,০০০ ব্যাগ বিক্রি করতে পারেন তাহলে মাস শেষে আয় হবে ৮০০০-১০০০০ টাকা।


No comments:

Post a Comment

Post Bottom Ad